বুধবার, ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১২:১০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে দুর্গাপূজা উপলক্ষে মির্জা ফয়সাল আমিনের এর পক্ষ থেকে আর্থিক অনুদান মহাষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে দুর্গাপূজোর মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু ঠাকুরগাঁওয়ে সংঘর্ষ এড়াতে দুর্গা মন্দিরে ১৪৪ ধারা জারি ডিবির অভিযানে ১৫০ বোতল ফেন্সিডিলসহ ঠাকুরগাঁওয়ে নারী মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ঠাকুরগাঁওয়ে পুকুর থেকে শিশুর মরদেহ উদ্ধার! ঠাকুরগাঁওয়ে করোনার কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া দরিদ্রদের মাঝে গরুর বাছুর বিতরণ ঠাকুরগাঁওয়ে মায়ের কবরে ছেলের লাশ উদ্ধার মামলায় গ্রেফতার ২ অভিনন্দন মোখলেছুর রহমান খান ভাসানী ডিআইজি হাবিবুর রহমান ও এএসপি এনায়েত করিমের যৌথ প্রচেষ্টায় কবরস্থান পেলো বেদে সম্প্রদায় ঠাকুরগাঁওয়ে ৭ দফা দাবিতে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন

মা-বোনকে আটকের খবরে কিশোরের আত্মহত্যা, এসআই ক্লোজড

বাংলার আলো ডেস্ক
  • হালনাগাদ সময় : শুক্রবার, ১৭ জুলাই, ২০২০
  • ৫৫ বার

চট্টগ্রাম নগরের ডবলমুরিং থানার আগ্রাবাদ বাদামতলী এলাকায় পুলিশের হাতে মা-বোনকে আটকের খবরে মারুফ (১৬) নামের এক কিশোর আত্মহত্যা করেছে। এ ঘটনায় ডবলমুরিং থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. হেলালকে সাময়িকভাবে ক্লোজড করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) রাতে মারুফ বাদামতলী এলাকায় তার চাচার ঘরে ফ্যানের সাথে ঝুলে আত্মহত্যা করে। পরে রাতেই এসআই মো. হেলালকে সাময়িকভাবে ক্লোজড করা হয়েছে।

এ ঘটনা তদন্তে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে দুই সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন- ডবলমুরিং জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) ও ডবলমুরিং থানার পরিদর্শক (তদন্ত)। এ কমিটিকে আগামী ১২ ঘণ্টার মধ্যে মারুফের আত্মহত্যার বিষয়ে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

নগর পুলিশের উপ-কমিশনার (পশ্চিম জোন) ফারুক-উল হক বলেন, ডবলমুরিং থানার পুলিশের একটি টহল টিম মারুফকে ধরতে বাসায় গেলে সে পালিয়ে যান। বাসায় তার বোন অসুস্থ হয়ে পড়ে গেলে পুলিশ তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। কিন্তু পরে শুনতে পায় সেখানে এক কিশোর গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

তিনি আরও বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করেছে। কেন আত্মহত্যা করেছে তা এখনও জানা যায়নি। বিস্তারিত পরে জানানো হবে।

তবে এলাকাবাসীর দাবি, পুলিশের বাড়াবাড়ি এবং পুলিশের হাতে মা-বোনের লাঞ্চিত হওয়ার ঘটনা সহ্য করতে না পেরে মারুফ আত্মহত্যা করেছে।

স্থানীয়রা জানায়, আগ্রাবাদের বাদামতলি মসজিদ গলির মারুফের বাড়ির পেছনে পুলিশের এক সোর্সকে ঘোরাফেরা করতে দেখে মারুফসহ কয়েকজন যুবক চোর ভেবে গণপিটুনি দেয়। একপর্যায়ে সেখানে সাদা পোশাকে থাকা পুলিশ সদস্য হেলাল এসে ধরপাকড় শুরু করলে মারুফ পালিয়ে যায়। কিন্তু পুলিশ তাকে না পেয়ে তার বাসায় ভাঙচুর চালায় এবং তার মা-বোনকে আটক করে নিয়ে যায়। বিষয়টি মারুফ সহ্য করতে না পেরে চাচার ঘরে গিয়ে আত্মহত্যা করে।

মারুফের স্বজন ও এলাকাবাসীরা বলছেন, এসআই হেলাল মারুফের মা-বোনকে লাঞ্চিত করাই এমন ঘটনার ঘটেছে। মা-বোনের অপমানিত হওয়া এবং থানায় নিয়ে যাওয়াটা মেনে নিতে পারেনি মারুফ। এ কারণে সে আত্মহত্যা করেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১৭৮,৪৪৩
সুস্থ
৮৬,৪০৬
মৃত্যু
২,২৭৫

বিশ্বে

আক্রান্ত
৪৪,২৫২,৬৭৭
সুস্থ
৩২,৪৪৭,৫০৫
মৃত্যু
১,১৭১,৪৭৯
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত- বাংলার আলো বিডি
themesba-lates1749691102