শনিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২১, ০৯:০২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
মেয়র জাহাঙ্গীরের বিরুদ্ধে পঞ্চগড়ে মামলা বাংলাদেশ উন্নয়নের বিষে লাল হয়ে গেছে; রুমিন ফারহানা খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার জন্য বিদেশে প্রেরণের দাবিতে যুবদলের বিক্ষোভ উলিপুরে শিক্ষকের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ, তদন্তে দুদক ঠাকুরগাঁওয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থীর শাড়ি লুঙ্গি বিতরণ, বাধাঁ দেওয়ায় ইউপি সদস্য লাঞ্ছিত ঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপির রোমান বাদশা এবার নৌকার মাঝি! নৌকা প্রতিক পেয়ে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা জানালো চেয়ারম্যান মুকুল ২৩ ডিসেম্বরে হচ্ছে না চতুর্থ ধাপের ইউপি নির্বাচন শেষ মুহূর্তে নির্বাচনী প্রচারণায় ব্যস্ত স্বতন্ত্রপ্রার্থী বকুল কাল থেকে সিলেটে অনির্দিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

বিচারের দাবিতে কর্তৃপক্ষের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন ঠাকুরগাঁওয়ের এক বীরাঙ্গনা

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি
  • হালনাগাদ সময় : শনিবার, ২০ নভেম্বর, ২০২১
  • ৪৮ বার

ঠাকুরগাঁও পীরগঞ্জ উপজেলার ৬নং পীরগঞ্জ ইউনিয়ন বিশমাইল গ্রামের বীরাঙ্গনা জাহানারা বেগম চেয়ারম্যান দ্বারা নির্যাতনের এক বছর পার হয়ে গেলেও কোন বিচার পান নাই। বিচারের দাবিতে এখনো সেই বীরাঙ্গনা কতৃপক্ষের দ্বারে দ্বারে ঘুরছেন। এছাড়াও চেয়ারম্যান তার সন্তানদের মেরে ফেলার হুমকীর কারণে ভয়েও রয়েছে তিনি।

বিশমাইল গ্রামে বীরাঙ্গনা জাহানারা বেগম জানান, রিলিফ এর চাল নেওয়ার জন্য তিনি চেয়ারম্যানের কাছে যান। ৬নং পীরগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাহাবুব আলম তাকে চাল না দিয়ে তার উপর কোন কারণ ছাড়াই সকলের সামনে ঘাড় ধাক্কা দিয়ে রুম থেকে বেড় কর দেন। এর পরে অনেকের সামনে বীরাঙ্গনাকে দুইগালে একাধিক চড় থাপ্পড় দিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ তেকে তাড়িয়ে দেন।

এর পরে ইউএনও বরাবরে চেয়ারম্যানের এমন কার্যকলাপের নালিশ নিয়ে গেলে ইউএনও বিষয়টি দেখার আশ্বাস প্রদান করেন এবং ৫শত টাকা হাতে দিয়ে চলে যেতে বলেন। কিন্তু তার পরে চেয়ারম্যান বীরাঙ্গনাকে হুমকী দেন বেশি বাড়াবাড়ি করলে তার সন্তানদের মেরে ফেলবে। তার পরেও সমাজের অনেকের কাছে গেলেও কোন বিচার পান নাই। কিন্তু যে অপমান করেছে চেয়ারম্যান সেই অপমানের বোঝা মাথায় বয়ে নিয়ে বেড়াচ্ছে বীরাঙ্গনা।

ওই বিষয়ে এলাকাবাসি বলেন, চেয়ারম্যানের আগে কিছুই ছিল না। তার বাবা ছিলেন কানি পাইকার। হঠাৎ করে চেয়ারম্যান হওয়ার গরিবের চাল চুড়ি করে আলিশান বাড়ি দিয়েছেন। ইউনিয়ন পরিষদে কোন নালিশ নিয়ে গেলেই টাকা লাগবে চেয়ারম্যানের। কোন কাজ করাতে টাকা লাগে। ওই চেয়ারম্যানের অত্যাচারে অতিষ্ট এলাকাবাসি।

এছাড়াও কিছুদিন আগে চেয়ারম্যান মাহাবুব আলম এর বিরুদ্ধে ইউপি সদস্যদের সাথে অসদাচারন ও স্বেচ্ছাচারিতাসহ ক্ষমতার অপব্যবহারের অভিযোগ এনে অনাস্থা অভিযোগ দিয়েছিল ওই ইউনিয়নের ১১ জন ইউপি সদস্য।

এ বিষয়ে চেয়ারম্যান মাহাবুব হোসেনের সাথে কথা বলতে গেলে তিনি বলেন, অসব বিষয় নিয়ে কথা বলতে চাই না। ওই মহিলা এটা ফালতু মহিলা।

পীরগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রেজাউল করিম বলেন, ওই চেয়ারম্যান একজন উদ্ভত প্রকৃতির মানুষ। আইন কানুন কোন তোয়াক্কা করেন না। আমি চেয়ারম্যানকে সমস্যাটি সমাধানের একাধিকবার বলেছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত- বাংলার আলো বিডি
themesba-lates1749691102