বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ১২:১৫ পূর্বাহ্ন

দরিদ্রদের মুখে হাসি ফোটালো ঠাকুরগাঁওয়ের জুলুম বস্তির পাঁচ টাকার ঈদ সামগ্রী

সংবাদদাতার নাম
  • হালনাগাদ সময় : বুধবার, ২০ মে, ২০২০
  • ৭৫ বার

স্টাফ রিপোর্টার : নাম জুলুম বস্তি হলেও, সংগঠনটির কার্যক্রম একবারেই ভিন্ন। করোনা দুর্যোগের এই সময়ে মানবসেবায় নিজেদের নিয়োজিত করেছেন সংগঠনটির সকল সদস্য। করোনায় লকডাউনের কারণে সমগ্রজেলা অচলাবস্থায় বর্তমান পরিস্থিতিতে বিশেষ করে কর্মহীন দরিদ্র অসহায়, দিনমজুর ও শ্রমিকদের খাদ্য সহায়তা ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সরঞ্জাম সরবরাহের কারণে ইতোমধ্যে বেশ সুনাম অর্জন করেছে ঠাকুরগাঁওয়ের জুলুম বস্তি নামে এই সংগঠনটি।

তারই ধারাবাহিকতায় মুসলিম উম্মাহর সবচেয়ে বড় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে আটশত ব্যক্তিকে মাত্র পাঁচ টাকার বিনিমিয়ে ঈদের খাদ্য সামগ্রী উপহার দিয়েছে সংগঠনটি।

বুধবার দুপুরে ঠাকুরগাঁও সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয় বড় মাঠে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে প্রত্যেক ব্যক্তিকে ঈদ খাদ্য সামগ্রী হিসেবে চাল, ডাল, সেমাই, তেল, দুধ, চিনি ও সবজি প্রদান করা হয়। মাত্র পাঁচ টাকায় বিনিময়ে ঈদ খাদ্য সামগ্রীর এমন উপহার পেয়ে খুশি সাধারণ মানুষ।

বিতরণ অনুষ্ঠানে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আব্দুল্লাহ-আল-মামুন, চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি হাবিবুল ইসলাম বাবলু, সাবেক ক্রীড়া অফিসার আবু মহীউদ্দীন, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাসুদুর রহমান বাবু, জুলুমবস্তি সংগঠনের সভাপতি মিঠুন হাসান, ফারুক হোসেন জুুলু, আব্দুল্লাহ আল মামুন সহ সংগঠনের অন্যান্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

পৌর শহরের মুন্সিপাড়ার বাসিন্দা সালেহা বেগম জানান, তিনি অন্যের বাড়িতে গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করেন। তার স্বামী একজন ভ্যান চালক। করোনার কারণে এখন আর কেউ তাকে বাড়িতে কাজে নেন না। এমন অবস্থায় স্বামী ও দুই সন্তান নিয়ে অর্ধাহারে তার দিন চলছে। সামনে ঈদ তাই সন্তানদের কথা ভেবে আরো দু:চিন্তায় ছিলেন তিনি। কিন্তু ঈদের কয়েকদিন পূর্বে মাত্র পাঁচ টাকায় ঈদ খাদ্য সামগ্রী পেয়ে তার অনেকটা কষ্ট লাঘব হয়েছে, অন্তত ঈদে সন্তানদের মুখে দুধ সেমাই তুলে দিতে পারবেন ।

শান্তি নগর এলাকার মোকসেদ আলী জানান, তিনি অন্যের হোটেলে দিন ভিত্তিক শ্রমিক হিসেবে কাজ করতেন। সেখানে প্রতিদিন খাওয়া দাওয়া সহ তিনশত টাকা পেতেন। কিন্তু দুই মাসের অধিক হলো হোটেল বন্ধ থাকায় সংসার খরচ চালাতে পারছেন না। কোন দিন দু বেলা আবার কোনদিন একবেলা খেয়ে জীবন চলছে তার। বাস্তব জীবনে মাত্র পাঁচ টাকায় এতো খাদ্য সামগ্রী কেনা অসম্ভব বিষয়। হঠাৎ করে পাঁচ টাকার ঈদ সামগ্রী তার কছে শুধু স্বপ্ন হিসেবে এসেছে। এই দু:সময়ে দরিদ্র মানুষের পাশে দাড়াবার জন্য সংগঠনটির সকলকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

জুলুম বস্তির অন্যতম সদস্য ফারুক হোসেন জুুলু জানান, সমাজের বিত্তবানদের সহযোগীতায় ও নিজেদের অর্থায়নে সংগঠনের সকল সদস্যরা করোনা মোকাবেলায় কর্মহীন দরিদ্র মানুষের খাদ্য সহায়তা করে যাচ্ছেন। এরপূর্বে বিনামূল্যে খাদ্য সহায়তা ও স্বাস্থ্য সুরক্ষা সারঞ্জাম সরবরাহ করা হয়েছে। পরবর্তীতে সর্বসাধারণের জন্য বাজার মুল্যের চেয়ে শতকরা ৩০ ভাগ কমে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যদ্রব্য খোলাবাজারে বিক্রয় করেছেন তারা। যেহুতু আর কিছু দিন পরেই পবিত্র ঈদুল ফিতর সেদিক বিবেচনা করে কর্মহীন দরিদ্র মানুষদের ঈদ খাদ্য সামগ্রী দেয়ার চেষ্ঠা করেছেন তারা। যাতে মধ্যবিত্তরাও এই খাদ্য সামগ্রী নিতে পারেন সেজন্য সংগঠনের পক্ষ থেকে এই ঈদ খাদ্য সামগ্রী ত্রাণ হিসেবে নয়, সহযোগীতা করছেন তারা। তাই সকলের কাছ থেকে মাত্র পাঁচ টাকা টোকেন মূল্য নেয়া হয়েছে।

ঈদের দিনে একহাজার অসহায় ব্যক্তিদের বাড়িতে বাড়িতে খাদ্য সামগ্রী পৌছিঁয়ে দেয়া হবে বলেও জানান তিনি।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ-আল-মামুন জানান, জুলুম বস্তি একটি অরাজনৈতিক সংগঠন। আর্তমানবতার সেবায় তারা কাজ করে যাচ্ছেন। সদর উপজেলা প্রশাসন ও ব্যক্তিগতভাবে তিনি তাদের পাশে থেকেছেন এবং সব ধরণের সহযোগীতা করে যাচ্ছেন। সরকারের পাশাপাশি এধরণের সামাজিক অন্যান্য সংগঠনগুলোকেও করোনা মোকাবেলায় মানুষের পাশে থেকে সহযোগীতার আহবান জানান তিনি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু

বিশ্বে

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত- বাংলার আলো বিডি
themesba-lates1749691102