শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০৮:০২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
মহাষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে দুর্গাপূজোর মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু ঠাকুরগাঁওয়ে সংঘর্ষ এড়াতে দুর্গা মন্দিরে ১৪৪ ধারা জারি ডিবির অভিযানে ১৫০ বোতল ফেন্সিডিলসহ ঠাকুরগাঁওয়ে নারী মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ঠাকুরগাঁওয়ে পুকুর থেকে শিশুর মরদেহ উদ্ধার! ঠাকুরগাঁওয়ে করোনার কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া দরিদ্রদের মাঝে গরুর বাছুর বিতরণ ঠাকুরগাঁওয়ে মায়ের কবরে ছেলের লাশ উদ্ধার মামলায় গ্রেফতার ২ অভিনন্দন মোখলেছুর রহমান খান ভাসানী ডিআইজি হাবিবুর রহমান ও এএসপি এনায়েত করিমের যৌথ প্রচেষ্টায় কবরস্থান পেলো বেদে সম্প্রদায় ঠাকুরগাঁওয়ে ৭ দফা দাবিতে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন পূজা মণ্ডপে সন্ধ্যায় আরতির পর প্রবেশ নিষেধ

ঠাকুরগাঁওয়ে হাসপাতালে ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দিতে গিয়ে প্রাণ গেল রোগীর

নিজস্ব প্রতিবেদক
  • হালনাগাদ সময় : বুধবার, ১৪ অক্টোবর, ২০২০
  • ৯৯ বার
ঠাকুরগাঁওয়ে হাসপাতালে ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দিতে গিয়ে প্রাণ গেল রোগীর

ঠাকুরগাঁওয়ে ধর্ষণের চেষ্টার ঘটনা ধামাচাপা দিতে গিয়ে প্রাণ গেল রোগীর। এমন অভিযোগ উঠেছে ফ্রেন্সস্ এ্যাপোলো হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগোষ্টিক সেন্টার কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে।

অভিযোগে জানা যায়, ঠাকুরগাঁও শহরের মিলননগর আর কে স্টেস্ট উচ্চ বিদ্যালয় সংলগ্ন এলাকার আব্দুল মোমেনের কন্যা শামিয়া আক্তার (২২) প্রসব জনিত সমস্যা নিয়ে গত ১২ অক্টোবর রাত ৯টার দিকে ফ্রেন্সস্ এ্যাপোলো হাসপাতাল অ্যান্ড ডায়াগোষ্টিক সেন্টারে ভর্তি হন। পরে তার সিজারিয়নে একটি কন্যা সন্তান জন্ম হয়।

অপরদিকে ওইদিন রাতেই হাসাপাতাল অ্যান্ড ডায়াগোষ্টিক সেন্টারে একটি ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। ওই ধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপাদিতে গিয়ে রোগীদের প্রতি খেয়াল না দেয়ায় সিজারিয়ন রোগী শামিয়া আক্তার গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন।

রোগীর স্বামী সাদেকুল ইসলাম বলেন বিষয়টি ক্লিনিক কর্তৃপক্ষকে বার বার অবগত করা হলেও তারা গুরুত্ব না দিয়ে উল্টো আমাদের সাথে দূরব্যবহার করেন। রোগীর অবস্থার অবনতি ঘটলে পরে ১৩ অক্টোবর বিকালে উন্নত চিকিৎসার জন্য দিনাজপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। দিনাজপুরে নিয়ে যাওয়ার পথে তার মৃত্যু হয়। তিনি আরও বলেন ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের খামখেয়ালিপনার কারণে আমার স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে।

একটি সূত্র জানায় ১২ অক্টোবর রাতে ফ্রেন্সস্ এ্যাপোলো হাসপাতাল এন্ড ডায়াগোষ্টিক সেন্টারের ওটি বয় বাসুদেব এবং ম্যানেজার আবুল কাসেম ওই ক্লিনিকের শিক্ষানবীস এক নার্সকে ধর্ষণ করে। ঘটনাটি জানাজানি হলে ৫০ হাজার টাকা দিয়ে মিমাংশিত হয়।

ওটি বয় বাসুদেব এবং ম্যানেজার আবুল কাসেমের সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করেও পাওয়া যায়নি।

সিজারিয়ন ডা. আবিদা সুলতানা বলেন আমাকে ১৬ ঘণ্টা পরে জানানো হয়েছে। বিষয়টি ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের আরও আগে জানানো উচিত ছিল। এর জন্য ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ দায়ী।

ফ্রেন্সস্ এ্যাপোলো হাসপাতাল এন্ড ডায়াগোষ্টিক সেন্টারের পরিচালক নাজমুল ইসলাম শাহ বলেন ধর্ষণের ঘটনা ক্লিনিকে ঘটেনি। রোগী মারা যাওয়ার বিষয়টিতে ক্লিনিক কর্তৃপক্ষ দায়ী নয় এর জন্য কর্তব্যরত চিকিৎসক দায়ী।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১৭৮,৪৪৩
সুস্থ
৮৬,৪০৬
মৃত্যু
২,২৭৫

বিশ্বে

আক্রান্ত
৪১,৯৭৪,০০১
সুস্থ
৩১,১৮১,৮০১
মৃত্যু
১,১৪২,৬৪২
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত- বাংলার আলো বিডি
themesba-lates1749691102