মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ১১:১২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে বঙ্গমাতার জন্মবার্ষিকী পালন ঠাকুরগাঁওয়ে নির্বাচনী সহিংসতা, গ্রেফতার আতঙ্কে বন্ধ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ঠাকুরগাঁওয়ে মহানবী (সাঃ)’কে নিয়ে কটুক্তি করায় আটক এক  ঠাকুরগাঁওয়ে আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর বৃক্ষরোপণ অভিযান ঠাকুরগাঁওয়ে পশুর হাট গুলোতে অতিরিক্ত টাকা আদায়ের অভিযোগ রাণীশংকৈলে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিত্বে পুষ্পমাল্য অর্পণ ঠাকুরগাঁও আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসে ভোগান্তি নবাগত ওসির সাথে ঠাকুরগাঁও রিপোর্টার্স ইউনিটির সাংবাদকর্মীদের মতবিনিময়  ঠাকুরগাঁওয়ে চাইনিজ রেষ্টুরেন্ট মালিক সমিতির কমিটি গঠন ঠাকুরগাঁওয়ে ট্রাক ট্যাংকলরি কভার ভ্যান শ্রমিক দলের কমিটি ঘোষণা

ঠাকুরগাঁওয়ে পিডিবির সম্পদ হরিলুট নেই সঠিক তদারকি

সোহেল তানভীর, স্টাফ রিপোর্টার
  • হালনাগাদ সময় : রবিবার, ১২ জুন, ২০২২
  • ৩৪ বার

যথাযথ দেখভাল আর তদারকির অভাবে ঠাকুরগাঁওয়ে হরিলুট চলছে বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নিজস্ব সম্পত্তি । স্থানীয়রা যে যেভাবে পারছে সেভাবেই এ লুটে অংশ নিচ্ছে। স্থাপনার ইট খুলে বিক্রি করার পাশাপাশি কাঁটাতারের বেড়া, দরজা , জানালা, বৈদ্যুতিক তারও নিয়ে যাচ্ছে এলাকাবাসী। আর যারা এসব করছে এবং এসব লুটের মাল কেনা বেচার সাথে জড়িত স্বয়ং তারাও বিস্মিত কোন রকম বাধা না পেয়ে।

ঠাকুরগাঁও রোড এলাকার রেল স্টেশনের পশ্চিম পাশে কিছুদিন আগেও সচল ছিলদুটি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র । এর একটি হল বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নিজস্ব ১০.৫ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা সম্পন্ন ঠাকুরগাঁও ডিজেল পাওয়ার স্টেশন। অপরটি হল বেসরকারি মালিকানায় স্থাপিত পিকিং প্লান্ট আর জেড পাওয়ার লিঃ।

ডিজেল পাওয়ার স্টেশনটি বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক বন্ধ ঘোষিত হবার পর এর সকল যন্ত্রপাতি টেন্ডারের মাধ্যমে বিক্রি করে দেয়া হয়। অপরদিকে আর জেড পাওয়ার লিঃ তাদের নির্ধারিত মেয়াদ পূর্তির পর বন্ধ ঘোষিত হলে এর মালামালও কর্তৃপক্ষ সরিয়ে নেন। দুটি বিদ্যুৎ কেন্দ্রেরই লৌহজাত মালামাল সরিয়ে নেয়ার পর যে স্থাপনা ছিল তা অরক্ষিত হয়ে পড়ে। এ সুযোগে স্থানীয় লোকজন (বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির পাশে রেলওয়ের জমিতে বসবাসরত) লোকজন প্রকাশ্যেই সেসব স্থাপনা ভেঙ্গে বিক্রি করা শুরু করে। সীমানা প্রাচীর, কাঁটাতারের বেড়া, বৈদ্যুতিক তার, দরজা জানালা কোন কিছুই বাদ যায়নি তাদের হাত থেকে। প্রকাশ্যে বিক্রি হচ্ছে প্রতি হাজার ইট ৫/৬ হাজার টাকায় । এসব মালামাল নিজেদের দখলে নিতে বস্তির বাসিন্দারা প্রায়শই নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষে লিপ্ত হচ্ছেন। প্রথমদিকে ভয়ে ভয়ে রাতের অন্ধকারে এমন লুটপাট চালালেও কোনদিক থেকে বাধা না পেয়ে বর্তমানে প্রকাশ্য দিবালোকেই মেতে ওঠে লুটপাটে।

স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দার সাথে কথা বলে জানা যায়, বস্তির কিছু লোক এসব কাজ করে। তাদের সবাই চিনে জানে। পিডিবির লোকও তাদের নাম জানে কিন্তু কিছু বলেনা। এজন্যই তারা সাহস পেয়ে গেছে।

ঠাকুরগাঁও বিদ্যুৎ বিভাগের (নেসকো লি:) নির্বাহী প্রকৌশলী মামুনুর রশিদ এ বিষয়ে জানান, বেসরকারি বিদ্যুৎ উৎপাদনকারীরা চলে যাওয়ার পর তারা আনসারদেরও তুলে নেয়। তারা সেভাবে ঐ এলাকাটি বুঝিয়ে দেয়নি। কোন আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে কি না এমন প্রশ্ন করলে তিনি জানান, সেভাবে গুরুত্ব দিয়ে দেখা হয়নি বিষয়টি।

বিদ্যুৎ কেন্দ্র দুটি এখন নেই কিন্তু জমি এবং স্থাপনা বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের নিজস্ব সম্পত্তি । সেই সম্পত্তি দেখভাল এবং তদারকির অভাবে এমন লুটপাট হবে তা মেনে নিতে পারছেন না এলাকার সচেতন মহল। তারা অবিলম্বে দোষিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ সহ সরকারী এ সম্পত্তি সঠিক দেখভালের দাবি জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই বিভাগের আরো খবর
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত- বাংলার আলো বিডি
themesba-lates1749691102