সোমবার, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৮:৫৯ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
ঠাকুরগাঁওয়ে দুর্গাপূজা উপলক্ষে মির্জা ফয়সাল আমিনের এর পক্ষ থেকে আর্থিক অনুদান মহাষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে দুর্গাপূজোর মূল আনুষ্ঠানিকতা শুরু ঠাকুরগাঁওয়ে সংঘর্ষ এড়াতে দুর্গা মন্দিরে ১৪৪ ধারা জারি ডিবির অভিযানে ১৫০ বোতল ফেন্সিডিলসহ ঠাকুরগাঁওয়ে নারী মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার ঠাকুরগাঁওয়ে পুকুর থেকে শিশুর মরদেহ উদ্ধার! ঠাকুরগাঁওয়ে করোনার কারণে কর্মহীন হয়ে পড়া দরিদ্রদের মাঝে গরুর বাছুর বিতরণ ঠাকুরগাঁওয়ে মায়ের কবরে ছেলের লাশ উদ্ধার মামলায় গ্রেফতার ২ অভিনন্দন মোখলেছুর রহমান খান ভাসানী ডিআইজি হাবিবুর রহমান ও এএসপি এনায়েত করিমের যৌথ প্রচেষ্টায় কবরস্থান পেলো বেদে সম্প্রদায় ঠাকুরগাঁওয়ে ৭ দফা দাবিতে স্বতন্ত্র ইবতেদায়ী মাদ্রাসা শিক্ষক সমিতির মানববন্ধন

ঠাকুরগাঁওয়ে অবৈধ ইটভাটা উচ্ছেদ

জাহিদ হাসান মিলু, ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি
  • হালনাগাদ সময় : বৃহস্পতিবার, ১৫ অক্টোবর, ২০২০
  • ৫৩ বার
ঠাকুরগাঁওয়ে অবৈধ ইটভাটা উচ্ছেদ

ঠাকুরগাঁওয়ে অন্যের জায়গায় জবর দখল করে গড়ে তোলা অবৈধ ইটভাটার স্থাপনা উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়েছে ।

বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) বেলা আড়াইটার দিকে সদর উপজেলার বরুনাগাঁও এলাকায় অবৈধভাবে গড়ে তোলা ফাইভ স্টার ব্রিক্স নামের ইট ভাটায় উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসন। এ সময় জেলা প্রশাসনের সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট গোলাম রব্বানী সরদার উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়, কবলাকৃত খরিদ বাবাদ ওই জায়গার সাড়ে ২৮ শতক জমির মালিক মো: মোশারুল ইসলাম। তিনি জৈনক নুরুল হকের কাছে প্রায় ২৬ বছর আগে জমিটি খরিদ করেন এবং সেখানে রাইসমিল স্থাপন করেন। পরবর্তীতে আবার গায়ের জোরে ওই জমি দখল করে নিয়ে সেখানে ইটভাটা স্থাপন করেন নুরুল হকেরা। সেই থেকে প্রায় ১৫ বছর ধরে অবৈধভাবে ওই জমিতে ইটভাটা স্থাপন করে ভোগদখল করে আসছিলো তারা।

এ বিষয়ে জমির মালিক দাবি করা মো: মোশারুল ইসলাম বলেন, আমার সম্পত্তি রক্ষার জন্য কোন উপায় খুঁজে না পেয়ে আমি জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দেই। সমস্ত কাগজপত্রাদি জেলা প্রশাসকের নিকট পেশ করি। এর পর জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসন অবৈধ দখলদার দের জায়গা খালি করার জন্য বলেন। কিন্তু তারা আইনের তোয়াক্কা না করে প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে অবৈধভাবে সেখানে ইটভাটা পরিচালনা করে আসছিলো।
এ রিপোর্ট লিখা পর্যন্ত মুঠোফোনে নুরুল হকের সাথে ফোনে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম বলেন, আমাদের কাছে গত বছর এমন একটি অভিযোগ ছিলো। আমরা এটা তদন্ত করে দেখি। গত বছরই উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করার কথা ছিলো। কিন্তু প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারনে সম্ভব হয়নি। এখন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে সেই অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করা হচ্ছে।
উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনার সময় পুলিশ প্রশাসন ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই বিভাগের আরো খবর

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাস

বাংলাদেশে

আক্রান্ত
১৭৮,৪৪৩
সুস্থ
৮৬,৪০৬
মৃত্যু
২,২৭৫

বিশ্বে

আক্রান্ত
৪৩,৪৬৭,১৩০
সুস্থ
৩১,৯৬০,৪৮৩
মৃত্যু
১,১৬০,৬৪৯
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত- বাংলার আলো বিডি
themesba-lates1749691102