রবিবার , সেপ্টেম্বর ২৩ ২০১৮
Breaking News

কারা কর্মকর্তা এবং রক্ষীদের জেলের ভাত খাওয়ানোর হুমকি দিলেন খালেদা জিয়া!

বাংলার আলো ডেস্ক: বেগম খালেদা জিয়া কারাগারে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠলেন। উত্তেজিত হয়ে কারা কর্মকর্তা এবং কারারক্ষীদের গালাগালিও করলেন। হুমকি দিলেন ‘তোমাদের সবাইকে দেখে নেবো। জেলের ভাত খাওয়াবো।’

আজ সকালে নাজিমউদ্দিন রোডে পুরাতন কারাগারে এই ঘটনা ঘটে। গত ৮ ফেব্রুয়ারি থেকে এখানেই কারাবন্দী হিসেবে আছেন বেগম জিয়া।

আজ বৃহস্পতিবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সকালে কারাগারের ডেপুটি জেলার এবং আরও কয়েকজন জেল কর্মকর্তা বেগম জিয়ার কাছে যান। জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বেগম জিয়ার হাজিরার তারিখ ছিল।

সম্প্রতি সরকার এক গেজেট বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে আলিয়া মাদ্রাসা থেকে এই মামলার স্থান নাজিমউদ্দিন রোডের পুরাতন কারাগারে নিয়ে আসেন। জিয়া চ্যারিটেবল দুর্নীতি মামলার প্রধান আসামি বেগম খালেদা জিয়া।

এতিমখানা দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত হওয়ার পর বেগম জিয়া বেগম জিয়া আর এই মামলায় হাজির হচ্ছেন না। সাত মাস হলো মামলার বিচার কার্যক্রম বন্ধ।

বেগম জিয়া যেহেতু আদালতে আসতে রাজি নন, তাঁর অসুস্থতা এসব বিবেচনায় এনে আইন মন্ত্রণালয় গত সপ্তাহে আদালতের স্থান পরিবর্তন করে।

প্রথমদিন আদালত বসলে বেগম জিয়াকে হুইল চেয়ারে করে আদালতে আনা হয়। এসময় বেগম জিয়া জানিয়ে দেন ‘যা খুশি রায় দিন, আমি আর আদালতে আসবো না।’

ঐদিন বেগম জিয়ার আইনজীবীরা বিচারকাজে অংশগ্রহণ না করায় আদালত মুলতবি করা হয়। এরপর বেগম জিয়ার আইনজীবীরা নাজিমউদ্দিন রোডে কারাগার স্থানান্তর বিষয়ে প্রধান বিচারপতির কাছে নালিশ করেন। প্রধান বিচারপতি বিষয়টি দেখার আশ্বাস দেন।

গতকাল বুধবার ড. আখতারুজ্জামানের বিশেষ আদালত আবার নাজিমউদ্দিন রোডে বসলে, বেগম জিয়া সেখানে যাননি। কারাগারের কর্মকর্তারা তাঁকে আদালতে যেতে বললে তিনি জানান যে, তিনি কোর্টে যাবেন না। অথচ আদালত বসানো হয়েছে বেগম জিয়া যেখানে কারাবাস করছেন তাঁর কাছেই।

কারা কর্তৃপক্ষকে গতকাল বুধবার অবশ্য বেগম জিয়া জানিয়েছিলেন যে, তিনি সুস্থবোধ করছেন না।

আজ বৃহস্পতিবার কারাগারের চিকিৎসকরা তাঁর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন। দেখা যায়, তিনি সুস্থ আছেন। এরপর ডেপুটি জেলার তাঁকে কোর্টে নেওয়ার জন্য হুইল চেয়ার নিয়ে আসেন। তখন বেগম জিয়া উত্তেজিত হয়ে যান।

কারাগারের একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘জেল কোড অনুযায়ী আমরা জোর করে উনাকে আদালতে নিয়ে যেতে পারতাম। কিন্তু উনার প্রতি সম্মান দেখিয়ে আমরা সেটা করিনি।’

ঐ কর্মকর্তা বলেন, ‘কোর্ট থেকে উনাকে হাজির করার নির্দেশনা এসেছে। এটা প্রডাকশন ওয়ারেন্ট। অক্ষম এবং অসুস্থতা ছাড়া এই নির্দেশ অমান্য করা আদালত অবমাননার শামিল।’ তিনি বলেন, ‘তারপরও উনি আমাদের সাথে দুর্ব্যবহার করেছেন।’

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে, জিয়া চ্যারিটেবল দুর্নীতি মামলার বিচার কাজ শেষ পর্যায়ে। এই মামলায় দণ্ডিত হলে বেগম জিয়ার মুক্তির শেষ আশাটুকুও নষ্ট হয়ে যাবে। এই বিবেচনা থেকেই বেগম জিয়ার অসুস্থতার কথা বলা হচ্ছে। বেগম জিয়া নিজেও আদালত এড়াতে চাইছেন। (বাংলা ইনসাইডার)

Check Also

ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্টের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক

বাংলার আলো ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট ন্যাম ত্র্যান দাই কুয়াংয়ের মৃত্যুতে গভীর শোক …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *